লুকানো


খোলস বদলানো যায়, কিন্তু খোলসের অন্তরালে লুকিয়ে রাখা পশুপ্রবৃত্তি বেশীদিন লুকিয়ে রাখা যায় না।

বাহির-ভিতর


বাহিরে বিস্তৃত যে সুখ মানুষকে অভিভূত করে, তার ভিতরের রূপ দেখতে বেশীরভাগই অপ্রস্তুত।

প্রশ্ন ও প্রসঙ্গ


তুমি কি নিজেকে আস্তিক মনে কর? তবে তোমার মহান রাব্বুল আলামিনের নামে কসম করে বলতো- তুমি তার সবকিছু বিশ্বাস কর, তার সব অনুশাসন তুমি মেনে চল, তিনি সর্বঅধিশ্বর তা নিয়ে তুমি একটা মুহূর্তেও সন্ধিহান হও না। শপদ করে বলতো দেখি তুমি মানুষকে মানুষ ভাবতে পার, উঁচু-নিচু প্রবেধ তুমি কর না, তুমি ধৈর্য্যচূত নও। বল তুমি কখনো মিথ্যাকে অগ্রাসন দাও না, তোমার কন্ঠে সত্য চিরভাষ্কর। যদি পার আমি তোমাকে অকপটে আস্তিক মেনে নেব। আর যদি না পার তবে তুমি যে প্রকারের আস্তিক এ প্রকারের আস্তিক সবসময় ধান্ধাবাজ হয় (যেমন- সাঈদী, গোলাম আজম, কামরুজ্জামান…) এরা নিজের স্বার্থের জন্য যেমন নিজের জন্মপরিচয় অস্বীকার করতে পারে, তেমনি নিজের কলংককে ঢাঁকতে বর্বর হত্যাযজ্ঞও সৃষ্টি করতে পারে। তোমার আমার কথায় অবিশ্বাসে আমার কিছু আসবে যাবে না, শুধু অনুরোধ করি নিজের হৃদয়কে সত্য জিজ্ঞাসা থেকে বিরত রেখ না।

প্রাপ্তী


জীবন স্রোতে যে ভেলায় নিত্য-দিনকার আসা-যাওয়া, সময়ের সাথে-সাথে সে ভেলায় জমে সুখ-দুঃখ-সমৃদ্ধি কিংবা অসহায়ত্ব। তবু জীবনস্রোত তাকেই কেবল পরিপূর্ণতায় ভরে দেয় যার হৃদয়ের দৃড়তা প্রকট, যে জীবনকে জীবনের চোখে দেখে, যার কাছে প্রাপ্তী বাসনা প্রলুব্ধ নয়।